অনলাইনে আয় ১০০% কার্যকরী মাধ্যম

অনলাইনে আয়, অনলাইন ইনকাম, অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট, মোবাইলে অনলাইনে আয়, অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়,অনলাইন ইনকাম সাইট, অনলাইনে আয় করার নিশ্চিত উপায় , অনলাইনে আয় ২০১৯, কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায়


অনলাইনে আয়ের বিভিন্ন মাধ্যম:

ইন্টারনেট আমাদের জীবনযাত্রাকে অনেক সহজ করে তুলেছে। ইন্টারনেট আমাদের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছে। এর ফলে মানুষ অনলাইনে আয়ের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম তৈরি করেছে। এসকল প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে মানুষ সহজে অর্থ উপার্জন করতে পারে। তবে এক্ষেত্রে সঠিক প্ল্যাটফর্ম বাছাই করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যে বিষয়ে দক্ষ অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য সেই প্লাটফর্ম কে বাছাই করতে হবে। তাহলে জীবনে সফলতা অর্জন করা সম্ভব।

অনলাইনে ইনকাম করতে গেলে অনেক সময় প্রতারণার মুখে পড়তে হয়। অনলাইনে আয় করে রাতারাতি বড়লোক হওয়ার কোন সুযোগ নেই। ধৈর্য ও কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। নিচে অনলাইনে আয়ের নির্ভরযোগ্য প্ল্যাটফর্মগুলো সম্পর্কে আলোচনা করা হল। আপনার সুবিধা মত যে কোন প্ল্যাটফর্ম বাছাই করে ধৈর্যের সাথে পরিশ্রম করলে  অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।

ফ্রিল্যান্সিং:

অনলাইনে আয়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় মাধ্যম হল ফ্রিল্যান্সিং। বিভিন্ন ওয়েবসাইট দক্ষতার ভিত্তিতে ফ্রিল্যান্সারদের বিভিন্ন ধরনের কাজ দিয়ে থাকে। ফ্রিল্যান্সারদের দক্ষতা অনুসারে বিভিন্ন কাজের জন্য আবেদন করতে হয়। এরকম কয়েকটি সাইট হল:



 এ সকল ওয়েবসাইট থেকে ঘন্টায় ৫ থেকে ১০০ ডলার পর্যন্ত ইনকাম করা সম্ভব। কাজ সম্পাদন করার পর  ক্লাইন্টের যদি কাজ কি পছন্দ হয় তবে তারা পেমেন্ট করে থাকে এবং তারা ফ্রিল্যান্সারদের বিভিন্ন ধরনের রেটিং প্রদান করে থাকে। এসব রেটিং তাড়াতাড়ি কাজ পাওয়ার জন্য বিশেষ ভূমিকা পালন করে। এসব রেটিং এর মাধ্যমে একজন ফ্রিল্যান্সারের দক্ষতা অনুমান করা যায়। এখানে ফ্রিল্যান্সার তার সুবিধামতো সময়ে ক্লায়েন্টের কাছ থেকে কাজ নিতে পারে এবং কাজ সম্পন্ন করার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারে।

অনলাইনে আয়, অনলাইন ইনকাম, অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট, মোবাইলে অনলাইনে আয়, অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়,অনলাইন ইনকাম সাইট, অনলাইনে আয় করার নিশ্চিত উপায় , অনলাইনে আয় ২০১৯, কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায়


নিজের ওয়েবসাইট তৈরি:

নিজের একটি ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। নিজের একটি ওয়েবসাইট তৈরীর জন্য একটি ডোমেইন এবং একটি হোস্টিং সার্ভার প্রয়োজন। যে কেউ বাৎসরিক একটি নির্দিষ্ট অর্থ প্রদানের মাধ্যমে এসব সেবা নিতে পারে ওয়েবসাইট তৈরি করে তাতে বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট প্রকাশ করতে হবে। যখন ওয়েবসাইটে ভিজিটর আসতে শুরু করবে তখন বিভিন্ন অ্যাড নেটওয়ার্কের অ্যাড ব্যবহার করে ওয়েবসাইট থেকে ইনকাম করা সম্ভব। এক্ষেত্রে নির্ভরযোগ্য অ্যাড নেটওয়ার্ক বাছাই করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এইরকম একটি নির্ভরযোগ্য এড নেটওয়ার্ক হল গুগল অ্যাডসেন্স। এছাড়াও আরও অনেক ধরনের অ্যাড নেটওয়ার্ক রয়েছে আপনার ওয়েবসাইটে এসকল অ্যাড নেটওয়ার্কের অ্যাড প্রদর্শন করার মাধ্যমে আপনার ওয়েবসাইট থেকে অনলাইনে আয় করা সম্ভব।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং:

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। অনলাইনে অনেক প্রতিষ্ঠান পণ্য বা সেবা বিক্রি করে থাকে। কেউ যদি তাদের এসব পণ্য বা সেবা বিক্রি করতে সহায়তা করে তাহলে বিক্রয় কৃত অর্থের নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ বিক্রয়কারীকে দেওয়া হয়। আর যে পদ্ধতিতে  অন্যের পণ্য বা সেবা বিক্রি করার মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা যায় তাকে আফিলিয়েট মার্কেটিং বলে।   বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট এসব সুবিধা দিয়ে থাকে নিচে কিছু নির্ভরযোগ্য ওয়েবসাইটের নাম দেওয়া হল:


  • Amazon Affiliates
  • eBay Affiliates
  • Clickbank Affiliates
  • Leadpages Partner Program Affiliates
  • ShareASale Affiliates


অনলাইনে আয়, অনলাইন ইনকাম, অনলাইনে আয় বিকাশে পেমেন্ট, মোবাইলে অনলাইনে আয়, অনলাইনে আয় করার সহজ উপায়,অনলাইন ইনকাম সাইট, অনলাইনে আয় করার নিশ্চিত উপায় , অনলাইনে আয় ২০১৯, কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায়




গ্রাফিকস ডিজাইন:
গ্রাফিক ডিজাইন হল ঘরে বসে অনলাইনে আয়ের একটি শ্রেষ্ঠ মাধ্যম। ফ্রিল্যান্সিং বিভিন্ন ওয়েবসাইটে এ  কাজ দিয়ে থাকে। গ্রাফিক্স ডিজাইন থেকে অর্থ উপার্জন এর জন্য অনেক দক্ষ কঠোর পরিশ্রমের প্রয়োজন। বিভিন্ন ওয়েবসাইটের লোগো, পণ্যের ছবি, ভিজিটিং কার্ড ইত্যাদি তৈরি করে অর্থ উপার্জন করা যায়। অনলাইনে গ্রাফিক ডিজাইন এর অনেক চাহিদা রয়েছে। যে কেউ পেশাগতভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইনকে নিতে পারেন।



ওয়েব ডিজাইন:

অনলাইনে আয়ের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হলো ওয়েব ডিজাইন। এখন যে কোন প্রতিষ্ঠান বা ব্রান্ডের জন্য একটি ওয়েবসাইট  থাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আর এসব ওয়েবসাইটের ডিজাইন তৈরি করে অনলাইন থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। অনেকে ওয়েবসাইট ডিজাইন কে পেশা হিসেবে গ্রহণ করেছে। একটি ওয়েব ডিজাইন এর কাজে ২০০০ থেকে ১০০০০০ টাকা পর্যন্ত উপার্জন করা সম্ভব। সব ব্যবসায়ী প্রযুক্তিতে অভিজ্ঞ নয় এজন্য তারা তাদের ব্যবসার জন্য ওয়েবসাইট তৈরী করতে প্রচুর অর্থ ব্যয় করে থাকে আর একজন ফ্রিল্যান্সার ওয়েবসাইট ডিজাইন করে অনলাইন থেকে প্রচুর অর্থ ইনকাম করতে পারে।

ইউটিউব:

বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় অনলাইনে আয়ের প্ল্যাটফর্ম হলো ইউটিউব। ইউটিউবে নতুন ভিডিও আপলোড করে তা থেকে ইনকাম করা সম্ভব।  ইউটিউবে একটি চ্যানেল খুলতে হবে তারপর চ্যানেলটিকে এডসেন্সের মাধ্যমে মনিটাইজ করতে। হবে আপনার আপলোডকৃত ভিডিও দেখার সময় তাদের বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত হবে। এই বিজ্ঞাপনে ক্লিক করলেন আপনার একাউন্টে টাকা জমা হবে। এই টাকা আপনি মাস্টার কার্ড অথবা ব্যাংকের মাধ্যমে উত্তোলন করতে পারবেন। ইউটিউব থেকে অনলাইনে আয়ের জন্য মোটামুটি ধরনের ভিডিও এডিটিং জ্ঞান এবং ইন্টারনেট কানেকশন থাকলে কাজ শুরু করা যায়।

ডেটা এন্ট্রি:

অনলাইনে সহজ কাজ গুলোর একটি হচ্ছে ডাটা এন্ট্রির কাজ। বাইরের দেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ডাটা এন্ট্রি কাজ দিয়ে থাকে। বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম থেকে এসব কাজ নিতে হয়। এই কাজগুলো সাধারণত ছবি থেকে লেখা, পিডিএফ থেকে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে তথ্য প্রদান করা, ইন্টারনেটে বিভিন্ন  বিষয় অনুসন্ধান করে এই ধরনের হয়ে থাকে। তবে ডাটা এন্ট্রির জন্য অনেক ভুয়া ওয়েবসাইট তৈরি হয়েছে কাজ শুরু করার পূর্বে প্ল্যাটফর্ম সম্পর্ক সচেতন থাকতে হবে।

অনলাইনে আয়, earn money from online, অনলাইনে অর্থ উপার্জনের বিভিন্ন মাধ্যম, ফ্রিল্যান্সিং, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং,


পিটিসি:

পিটিসি সাইটের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। তবে বেশিরভাগ ভুয়া হয়ে থাকে এবং সময় মত পেমেন্ট করে না। তাই এইসব সাইটের মাধ্যমে অনলাইনে আয়ের চিন্তা না করাই ভালো। তবে অনেক পিটিসি সাইট আছে যারা ঠিক মত পেমেন্ট দিয়ে থাকে। এসব ওয়েবসাইট অ্যাড দেখার মাধ্যমে টাকা দিয়ে থাকে।

ব্লগিং:

অনেকে শখের বসে ব্লগ সাইট তৈরি করে। কিন্তু এই ব্লগ সাইটটিকে পেশাগত কাজে ব্যবহার করলে তা থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। আপনি ফ্রিতে ব্লগার বা ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইটে প্রবেশ ফ্রিতে ব্লগ তৈরি করতে পারবেন। এইসব ব্লগে কাস্টম ডোমেইন অ্যাড করে প্রফেশনাল মানের ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়। ব্লগার এ কিভাবে কাস্টম ডোমেইন করবেন তা জানার জন্য এখানে ক্লিক করুন। এটা অনেকটা ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে অনলাইনে আয়ের মত।

কনটেন্ট রাইটিং:

কনটেন্ট রাইটিং এর মাধ্যমে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। লেখালেখিতে অভিজ্ঞ এবং ইংরেজিতে দক্ষ কনটেন্ট রাইটিং এর মাধ্যমে একটি আর্টিকেল এর মাধ্যমে ৫ থেকে ৫০ডলার পর্যন্ত ইনকাম করতে পারেন। বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম কনটেন্ট রাইটিং এর ভালো কদর রয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম:

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম অনলাইনে আয়ের একটি অন্যতম প্লাটফর্ম। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ওয়েবসাইটের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকার পণ্য বা সামগ্রী সহজে বিক্রি করা যায়। এসব ওয়েবসাইটে যোগাযোগের পাশাপাশি বিভিন্ন পণ্য সামগ্রীর ভিডিও তৈরি করে তার ভাল দিকগুলো জনগণের কাছে তুলে ধরা হয় এবং আগ্রহী ব্যক্তিরা ওই সকল পণ্য কিনতে আগ্রহী হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কোন জনপ্রিয় পেজ থাকলে সেখানে বিভিন্ন অ্যাড প্রদর্শনীর মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করা যায়।

অনলাইন টিউটর:

ইন্টারনেটের মাধ্যমে এখন আপনি ঘরে বসে যে কোন বিষয়ে শিক্ষা অর্জন করতে পারবেন। আপনি যদি কোন বিষয়ে দক্ষ থাকেন তাহলে সেই বিষয়ে টিউটোরিয়াল তৈরি করে অনলাইনে বিক্রি করতে পারবেন। আপনার টিউটোরিয়াল যদি মানুষের পছন্দ হয় তাহলে তা বিক্রি করে বিপুল পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

ভার্চ্যুয়াল সহকারী:

বিশ্বের উন্নত দেশগুলোতে কাজের সুবিধার জন্য ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট রাখে। আউটসোর্সিং প্ল্যাটফর্ম থেকে এই কাজটি খুব সহজে পাওয়া যায়। এই কাজটি এসিস্টেন্ট এর কাজের মত।

জরিপ, সার্চ ও রিভিউ:

অনলাইনে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান তাদের পণ্যসামগ্রী, পেজ বা  অ্যাপ লাইক শেয়ার কমেন্ট  বা রিভিউ প্রদানের জন্য অর্থ খরচ করে থাকে। আপনি খুব সহজে এ কাজগুলো করার মাধ্যমে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

অনুবাদ:

ইংরেজির পাশাপাশি অন্য ভাষায় দক্ষ হলে সে দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব। ইংলিশ, স্পানিশ, চাইনিজ, রুশ, আরবি, ইত্যাদি ভাষায় অনুবাদের কাজ করে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব।

অনলাইন থেকে কিভাবে টাকা তুলব:

আপনি যদি নির্ভরযোগ্য কোন প্লাটফর্ম থেকে কাজ নিয়ে তা সম্পূর্ণভাবে সম্পাদন করেন তাহলে খুব সহজেই আপনি আপনার অর্থ উত্তোলন করতে পারবেন। নিচে অর্থ উত্তোলনের জনপ্রিয় কিছু  মাধ্যম  আলোচনা করা হলো:

  • পেপাল
  •  ব্যাংক ট্রান্সফার 
  • পেওনিয়ার 
  • মানিবুকারস্ 
  • পেইজা

আজকে এই পর্যন্ত, আপনাদের  অনলাইনে আয়ের  বিষয়ে যদি কোন কিছু জানার থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করবেন আমি উত্তর দেওয়ার যথাসাধ্য চেষ্টা করব।
Previous Post
Next Post
Related Posts

0 comments: